ঢাকা, ২২শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | ৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৫ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

জাতীয়করণের দাবি সংসদে উত্থাপন করবেন শিল্পমন্ত্রী এবং হাবিবা রহমান খান এমপি


প্রকাশিত: ৭:৩৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৫, ২০২০

বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি ফোরাম কর্তৃক বিশ্ব শিক্ষক দিবস-২০২০ উদযাপন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা দর্শন এবং এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত।

বিশ্ব শিক্ষক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত  আলোচনা সভায় এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের দাবি যৌক্তিক বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। সোমবার (৫ অক্টোবর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা দর্শন এবং মুজিব জন্মশতবর্ষে এমপিওভুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা জানান। শিল্পমন্ত্রী জাতীয়করণের দাবি জাতীয় সংসদে উত্থাপনেরও আশ্বাস দেন শিক্ষকদের।

Teachers: Leading in crisis, Reimagining the future.- শিক্ষকরা- সংকটে নেতৃত্ব দেন, ভবিষ্যত পুনর্র্নিমাণে প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি ফোরাম আজ ৫ অক্টোবর বিশ্ব শিক্ষক দিবস উদযাপন উপলক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি হলে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা দর্শন এবং এমপিওভুক্ত শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ শীর্ষক এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। ফোরামের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল ইসলাম মাসুদের সঞ্চালনায় উক্ত  আলোচনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শিল্প মন্ত্রী জনাব নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এম.পি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ  সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের সম্মানিত বিচারপতি জনাব এম. ফারুক, সংরক্ষিত নারী আসন-১৭ এর সম্মানিত সংসদ সদস্য, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য, নেত্রকোনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি ফোরামের সাবেক জেলা সভাপতি এবং বর্তমান উপদেষ্টা মন্ডলির সদস্য জনাব হাবিবা রহমান খান এম.পি। উক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপত্ত্বি করেন বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারি ফোরামের সভাপতি জনাব মো. সাইদুল হাসান সেলিম।

পবিত্র কুরআন তেলোয়াত এবং গীতা পাঠের মাধ্যমে শুরু হওয়া উক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে  বিভিন্ন বক্তা এবং উপস্থিত অতিথিবৃন্দ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শিক্ষাদর্শন এবং মুজিব জন্মশতবর্ষে এমপিওভূক্ত শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ নিয়ে বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রাজ্ঞ নেতৃত্বে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। শোভন কর্ম এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির মতো এসডিজি লক্ষ্য অর্জনে সরকার উন্নত দেশগুলোর আদলে বাংলাদেশেও শিক্ষকদের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করবে। এমপিওভুক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবি যৌক্তিক।’ শিক্ষক সমাজের এ দাবি সময় মতো জাতীয় সংসদে তুলে ধরা হবে বলে তিনি শিক্ষক-কর্মচারী নেতাদের আশ্বস্ত করেন।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে আমরা সকলেই শিক্ষা গ্রহণ করছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সেই প্রতিষ্ঠানের একজন যোগ্য শিক্ষার্থী এবং তিনি শিক্ষকদের সম্মান করে থাকেন। এ বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অধিকাংশ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করেছেন। কোভিড-১৯ এর প্রভাব কাটিয়ে ওঠে পর্যায়ক্রমে এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জাতীয়করণ করার সুযোগ তৈরি হবে।

বিশেষ অতিথি বিচারপতি এম ফারুখ বঙ্গবন্ধুর শিক্ষাদর্শন নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন শিক্ষকদের জাতীয়করণের দাবী যৌক্তিক এবং তিনি আশ্বাস দেন যে বর্তমান শিক্ষাবন্ধব সরকার অবশ্যই শিক্ষকদের এই দাবী মেনে নেবেন।

সংসদ সদস্য হাবিবা রহমান খানও  আগামী সংসদ অধিবেশনে শিক্ষকদের জাতীয়করণের দাবীর কথা উত্থাপন করবেন বলে বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের সভাপতি জনাব মো. সাইদুল হাসান সেলিম। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের যুগ্ম মহাসচিব জনাব মো. আব্দুল জব্বার, জি এম শাওন, দেলোয়ার হোসেন আজিজি প্রমূখ।

আজকের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফোরামের সিনিয়র সহ সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, সহ সভাপতি মোদাচ্ছির আলম, জালাল উদ্দিন, আনোয়ার হোসেন, সাজিদ মিয়া, মতলব হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব রেহান উদ্দিন, আব্দুল হালিম, আইনুল মন্ডল, গাজী মামুন আল জাকির,যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক , মো. জহিরুল ইসলাম, সোহেলি পারভীন, প্রদীপ কুমার সাহা,  জ্যোতিষ মজুমদার, এম এ মতিন, রুহুল আমিন,  প্রচার সম্পাদক মতিউর রহমান দুলাল, অর্থ  সম্পাদক কামরুল হাছান, যোগাযোগ সম্পাদক মো. গোলাম সাদেক, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান আইসিটি সম্পাদক নূরুল ইসলাম, আইন সম্পাদক শাহজাহান আলম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম, তোফায়েল সরকার,  লুৎফুর রহমান, দপ্তর  সম্পাদক এসএম ফরিদ উদ্দিন, আশরাফুল লতিফ তুহিন, মেহেদী হাসান, মো. মোহসিনসহ বিভিন্ন নেতৃবর্গ।