ইএফটিতে বেতন প্রদানের জন্য এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের যেসব তথ্য যাচাই করা হবে

প্রকাশিত: ৭:৪০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৭, ২০২১

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন সকল স্কুল ও কলেজের শিক্ষকদের বেতন G2P পদ্ধতিতে EFT এর মাধ্যমে প্রদানের লক্ষ্যে  প্রধান শিক্ষক/অধ্যক্ষ সহ সকল শিক্ষককে নিজ নিজ তথ্য নিয়ে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছে মাউশি। আজ ৭ জানুয়ারি মাউশির উপ পরিচালক (সাঃপ্রশাঃ) জনাব রুহুল মমিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ( স্কুল ও কলেজ) শিক্ষক-কর্মচারীগণের এমপিও এর অর্থ বিতরণ সহজীকরণের লক্ষ্যে গত ২/১/২০২০ তারিখে সচিব, অর্থ বিভাগ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় শিক্ষক কর্মচারীগণের এমপিও এর অর্থ প্রাপ্তির জন্য ব্যাবহৃত ব্যাংক এ্যাকাউন্টে G2P পদ্ধতিতে EFT এর মাধ্যমে প্রেরণের সিদ্ধান্ত হয়। ইতোমধ্যে অনলাইন এমপিও সিস্টেম আপগ্রেডের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

EFT এর মাধ্যমে অর্থ প্রাপ্তির লক্ষ্যে শিক্ষক কর্মচারীগণের নিম্নোক্ত তথ্যগুলো সঠিক থাকতে হবে।

১) শিক্ষক-কর্মচারীগণের জাতীয় পরিচয়পত্র (NID নং)

২) এসএসসি/দাখিল/সম্মান সনদ অনুযায়ী শিক্ষক-কর্মচারীগণের নাম (এসএসসি/দাখিল/সমমান সনদ, এমপিও শীট ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম একই হতে হবে)।

৩) যেসব শিক্ষক-কর্মচারীর এসএসসি/দাখিল/সমমান সনদ নেই তাদের সর্বশেষ শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ, এমপিও শীট ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম একই রকম থাকতে হবে।

৪) ব্যাংক হিসাবের নাম শিক্ষক-কর্মচারীগণের নিজ নামে থাকতে হবে।

৫) ব্যাংকের নাম, শাখার নাম ও রাউটিং নম্বর,

৬) শিক্ষক-কর্মচারীগণের ব্যাংক হিসাব নম্বর (অনলাইন ব্যাংক হিসাব নম্বর ১৩ থেকে ১৭ ভিজিট,

৭) শিক্ষক- কর্মচারীগণের জন্ম তারিখ,

৮) শিক্ষক-কর্মচারীগণের বেতন কোড ও বেতন কোডের ধাপ,

৯) শিক্ষক-কর্মচারীগণের মোবাইল নম্বর।

সকল তথ্য সঠিক না থাকলে শিক্ষক -কর্মচারীগণের বেতন EFT এর মাধ্যমে প্রেরণ করা সম্ভব হবেনা।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, , সব তথ্য সঠিক না থাকলে এমপিও এর টাকা শিক্ষক কর্মচারীদের ব্যাংক হিসাবে জমা হবে না। এসব তথ্য প্রতিষ্ঠান প্রধানের মধ্যেমে অনলাইনে সংগ্রহের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে ইএমআইএস সেলের লিংকসহ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হবে। এসব তথ্য সংগ্রহ করে শিক্ষকদের প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা অধিদপ্তর।